পড়শি যদি আমায় ছুঁতো যম যাতনা সকল যেত দূরে: লালন সাঁই

পড়শি যদি আমায় ছুঁতো যম যাতনা সকল যেত দূরে: লালন সাঁই

hhhhhhhhhhhhhh

অগ্নিপথ- ফ্যসিবাদী পথ, সেনাবাহিনীর হিন্দুকরণ এবং হিন্দুদের সামরিকীকরণের পরিকল্পনা।

  • 21 June, 2022
  • 0 Comment(s)
  • 851 view(s)
  • লিখেছেন : মিলি মুখার্জী
দেশের মধ্যে যখন চরম বেকারত্ব, সেই সময়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে অগ্নিপথ প্রকল্প ঘোষণা করা হলো। কিন্তু সেই প্রকল্পের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে শুরু হয়ে গেল বিক্ষোভ। অনেক প্রশ্ন উঠছে, অনেকে বলছেন সেনাবাহিনীতে এই নিয়োগটি আসলে সেনাবাহিনীর হিন্দুকরণের প্রকল্প। অনেকে বলছেন, এই প্রকল্পের সঙ্গে হিটলারের অস্থায়ী এসএস বাহিনীর সাযুজ্য আছে।


প্রায় ৯৮ লাখ সরকারি পদ শূন্য রয়েছে। কয়েক ডজন নিয়োগ বিতর্কে আটকে আছে, গত আট বছরে নিয়োগ কমেছে ৮০%। এরই মধ্যে প্রতিরক্ষা দপ্তরের তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে অগ্নিপথ প্রকল্পের, যার মধ্যে দিয়ে সেনাবাহিনীতে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ হবে। বেশিরভাগ যুবক এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন। তবে শাসক শ্রেণীর ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে নয়, সেনাবাহিনীতে স্থায়ীভাবে যোগদান করার জন্য। সরকার ১৪ই জুন এই প্রকল্প ঘোষণা করেছে। এতে ৪ বছরের জন্য যুবকদের নিয়োগ দেওয়া হবে এবং তাদের 'অগ্নিবীর' সম্মান দেওয়া হবে। তারা প্রতি মাসে ৩০,০০০ থেকে ৪০,০০০ বেতন পাবেন এবং তাদের বয়স ১৭ থেকে ২১ বছরের মধ্যে হবে। এই প্রকল্পের অর্থ হল নিয়োগকৃত যুবকদের ২৫ শতাংশ সেনাবাহিনীতে চান্স পাবে এবং বাকি ৭৫ শতাংশকে চাকরি ছেড়ে দিতে হবে। ৪ বছর পর ২৫% প্রার্থী যোগ্যতার ভিত্তিতে স্থায়ীভাবে সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হবে। বাকি ৭৫ শতাংশকে দক্ষতার শংসাপত্র দেওয়া হবে যাতে তারা তাদের যোগ্যতা অনুযায়ী সরকারি বা বেসরকারি চাকরিতে অগ্রাধিকার পেতে পারে।আসলে পাঁচ বছর পূর্ণ হলে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী গ্র্যাচুইটি ফান্ড সহ অনেক সরকারি সুযোগ-সুবিধা দিতে হবে। চার বছরের কোর্স হলে এসব দায়িত্ব থেকে সরকার রক্ষা পাবে।


আসলে অগ্নিপথ প্রকল্পের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর হিন্দুকরণ, যা ইতিমধ্যেই অব্যাহত রয়েছে। ভারতবর্ষ অনেক জাতিয়তা, অনেক ধর্ম, অনেক ভাষা সম্পন্ন দেশ, কিন্তু এই সৈন্যদের একটি দেশ, এক জাতি, এক ধর্ম, এক নেতা, এক দল, এক আদর্শ বিভেদমূলক ফ্যাসিস্ট শিক্ষা দেওয়া হবে। এর মানে বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ চাকরি শুধুমাত্র তারাই পাবে যারা মুসলমান, খ্রিস্টান এবং কমিউনিস্ট বিরোধী এবং এবং শোষক শ্রেণীর অন্ধ ভক্ত হবে। নিশ্চয়ই সরকার তার সরকারি খরচে এত বড় জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণ দিতে পারবে না। তাহলে অদূর ভবিষ্যতে RSS এর অনেক ধন্না সেঠমিলিটারি ট্রেনিং স্কুল খুলে ট্রেনিং দেবে। প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খোলার জন্য এমন শর্ত থাকবে যে শুধুমাত্র আরএসএস-এর লোকেরাই সেই শর্তগুলি পূরণ করতে পারবে।


রিজার্ভ ফোর্সের জওয়ানরা সরকারী কোষাগার থেকে খায়, পান করে, পেনাল মিটিং করে মোটা অঙ্কের বেতন নেয়, কিন্তু অগ্নিবীর চার বছরের ট্রেনিং শেষে বাড়ি ফিরে যাবে, তাদের পেছনেআর কোন খরচ হবে না, এরা এমন রিজার্ভ ফোর্স হবে যে, যখন তাদের যুদ্ধ করে মরতে মোতায়েন করা হবে, তখনই তাদের বেতন দেওয়া হবে, মানে এরা ফ্রি রিজার্ভ ফোর্সে পরিণত হবে। শ্রীলঙ্কার মতো পরিস্থিতি হলে, জনগণ যখন বাঁচার অধিকারে রাস্তায় নেমে আসবে, তখনই জনগণকে পিষে ফেলার জন্য এই সব অগ্নিবীরদের হাতে অস্ত্র তুলে দেওয়া হবে।
মুদ্রাস্ফীতি, বেকারত্ব, দুর্নীতি, সুদখোরি, মজুদ, ভেজাল ভয়াবহভাবে বাড়ছে, প্রতিবেশী শ্রীলঙ্কার চেয়েও খারাপ অবস্থার দিকে যাচ্ছে দেশ। খুবই দুর্ভাগ্যজনক যে জীবনের উন্নত ক্ষেত্রে কর্মসংস্থানের সুযোগ খোঁজার পরিবর্তে, তরুণ প্রজন্মকে সশস্ত্র বাহিনীতে কর্মসংস্থান খুঁজতে হচ্ছে।পুঁজিবাদ কখনই সার্বিক কর্মসংস্থান দিতে পারেনি, কিন্তু সাম্রাজ্যবাদের যুগে, আরও জীর্ণ ও দেউলিয়া হয়ে গেছে। বাজারের ধ্বংসের মধ্যে, অবশিষ্ট কর্মসংস্থানের সুযোগও ফুরিয়ে যাচ্ছে এবং বেকারদের ভিড় উপচে পড়ছে।


বেকারদের এই ভিড়, পুঁজিবাদীদের জন্য সস্তা শ্রম ভান্ডার, কিন্তু বেকারত্ব পুঁজিবাদী শক্তির কাছে একটা চ্যালেঞ্জও। পুঁজিবাদী সরকারের কাছে বেকারত্বের কোনো সমাধান নেই। ফ্রেডরিখ এঙ্গেলসের মতে, ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব এক সময় একটি বড় সামাজিক বিস্ফোরণের দিকে নিয়ে যাবে। আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবতের বক্তব্যকে মোদি সরকার খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে বলে মনে হচ্ছে, যে সেনাবাহিনী ৬ মাসে প্রস্তুত হবে, আমরা ২ দিনেই প্রস্তুত, এটা কি সেই স্বল্পমেয়াদী এন্ট্রির ফলাফল? এমনিতেই সেনাবাহিনীতে ১.৬০ লাখ সৈন্য ইতিমধ্যে কম। এছাড়াও প্রতি বছর প্রায় 55 হাজার অবসর নেয়। বিদ্যমান সংখ্যা থেকে ১ লাখ সৈন্য অপসারণের পরিকল্পনাও রয়েছে। এত কিছুর পর বাকি থাকলো কি ? অগ্নিবীর? আসলে অগ্নিপথ স্কিম নিউ ওয়ার্ল্ড অর্ডারের অংশ! এটি সেনাবাহিনীকে বেসরকারীকরণের এমন একটি প্রয়াস, যার চূড়ান্ত পরিণতি, একটি সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক সংস্থা ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির দ্বারা সেনাবাহিনীর মাধ্যমে সমগ্র ভারতকে নিজের দখলে নেওয়া, আমরা ইতিহাসে আগে দেখেছি এবং এর নৃশংসতাও সহ্য করেছি। ভারতে সরকারের সম্মতিতে বেসরকারী সেক্টরে নিজের সেনাবাহিনী রাখার ট্রেন্ড এই দশক শেষ হওয়ার আগেই নিজের চোখে দেখবেন। আমাদের সরকার অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তারজন্য চুক্তি দেবে। এই পরিকল্পনার খসড়া প্রস্তুত। সম্ভবত এই সবই শীঘ্রই বেরিয়ে আসবে কারণ প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে এবং শুরুটা হতে চলেছে উত্তরপ্রদেশ থেকে। গত কয়েক দশক ধরে দেখা যাচ্ছে বিশ্বের অনেক জায়গায় ভাড়াটে বাহিনী যুদ্ধে ব্যবহৃত হচ্ছে। অগ্নিবীর তারই ভারতীয় সংস্করণ। ইউক্রেনের সাথেবর্তমান যুদ্ধে, রাশিয়া ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে বেসরকারী সামরিক কোম্পানি ওয়াগনারের সৈন্য মোতায়েন করেছে। ব্যক্তিগত সামরিক কোম্পানির যোদ্ধাদের ছোট ছোট মিশন বা সীমিত এলাকায় দায়িত্ব পালনের বিপরীতে নিয়মিত সৈন্যদের মতো বড় ধরনের যুদ্ধে কাজে লাগাতে শুরু করে আমেরিকা প্রথম ইরাকের বিরুদ্ধে।ইরাক থেকে আফগানিস্তান পর্যন্ত, আমেরিকা , সামরিক ঠিকাদারদের দ্বারা সরবরাহকৃত ভাড়াটে সৈন্যব্যবহার করে আসছে।বিশ্বে প্রাইভেট মিলিটারি কন্ট্রাক্টারী ব্যবসার 70 শতাংশের উপর বিশ্বের চারটি দেশ আমেরিকা, ব্রিটেন, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার দখলে। এই বাণিজ্যে রাশিয়ারও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে



এই পরিকল্পনার সমর্থনে যুক্তি দেওয়া হচ্ছে যে ইসরায়েলের এই পরিকল্পনা আছে এবং সব নাগরিকদের জন্য বাধ্যতামূলক সামরিক প্রশিক্ষণ রয়েছে। কিন্তু ভারত একটি অত্যন্ত বিশাল, বহুসাংস্কৃতিক ও বৈচিত্র্যময় দেশ ইসরায়েলের মত নয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরে, ভার্সাই চুক্তির প্রধান শর্ত ছিল জার্মান সেনাবাহিনীকে কমানো। প্রতি দশজন সৈন্যের মধ্যে আটজনকে অবসর নিতে বাধ্য করানো হয়েছিল। ১৯১৯ থেকে ১৯৩০ সাল পর্যন্তলক্ষ লক্ষ প্রশিক্ষিত সৈন্য রাস্তায় ঘুরছিল, মজুরি করছিল। তাদের আত্মমর্যাদাবোধ ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গিয়েছিল। নাৎসি পার্টি একটি স্বেচ্ছাসেবক দল গঠন করে। সমস্তপ্রবীণ সৈনিকদের বন্দী করে, দলের আদর্শে প্রশিক্ষণ দেয়।

স্পষ্টতই, খাঁটি জার্মান জাতের মানুষরাই এতে প্রবেশ করতে পারবে। ইহুদিদের উপর অত্যাচার করার জন্য তাদের খোলা ছুট ছিল। পুলিশ এবং সরকার বিভ্রান্ত। এসএস গুন্ডাদের অন্যতম প্রধান কাজ ছিল তাদের নিজেদের সমাবেশ দক্ষতার সাথে সংগঠিত করা,এবং অন্যদের নষ্ট করা। মারধোর গুন্ডামির ছাড় দেওয়া হয়েছিল। একেবারে সামরিক শৃঙ্খলা ও সামরিক র‍্যাংকিং যাদেরঅবৈধ উপার্জনের ছুট ছিল। পরাজিত জার্মানিতে, বৃদ্ধ বয়সের সৈন্যরা, যারা তখনও সমাজে সম্মানিত ছিল, নাৎসিদের প্রতি তাদের সমর্থন সাধারণ জনগণের মধ্যে নাৎসি পার্টির গ্রহণযোগ্যতা বাড়িয়েছিল। অবসরপ্রাপ্ত সৈন্যদের প্রতি এই সম্মানই হিটলারের নির্বাচনের পথকে সহজ করে দিয়েছিল। ক্ষমতায় আসার পর এসএস প্রসারিত হয়। হিটলার দেশের সেনাবাহিনী ও পুলিশকে বিশ্বাস করতেন না। তারা ছিলেন সরকারী লোক, সংবিধানের প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ। এসএস হিটলারের কাছে এবং শুধুমাত্র হিটলারের প্রতি আনুগত্যের শপথ নিত। পরবর্তী সময়ে, এসএস সদস্যদের সেনাবাহিনী, পুলিশ, গেস্টাপো এবং সমস্ত সরকারী সংস্থায় চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ করা হয়। এটাকে lateral entry system ধরে নিন, এইভাবে নাৎসিরা আমলাতন্ত্রের প্রতিটি ব্যবস্থায় ঢুকে গিয়েছিল। একটা সময় এসেছিল যখন এসএস সদস্যের সংখ্যা সেনাবাহিনীর দশগুণ হয়ে গিয়েছিল। পুরো দেশ, এর প্রতিটি সংগঠন নাৎসি গ্যাংয়ে পরিণত হয়েছিল। জার্মানি পুরোপুরি হিটলারের দখলে ছিল।

এটি সেই চমৎকার মডেল যা পড়তে মুঞ্জে ইউরোপে গিয়েছিলেন। এর পর ভারতেও শাখা চালু হয়। স্বেচ্ছাসেবকদের সামরিক প্রশিক্ষণ শুরু হয়। সাভারকরও হিন্দুদের সামরিকীকরণের উপর জোর দেন। এই কারণে, হিন্দু মহাসভা এবং সংঘ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় সেনাবাহিনীতে ভারতীয়দের অস্থায়ী প্রবেশের পক্ষে ওকালতি করে। নিয়োগ র‍্যালিগুলোকে ফ্যাসিলেটেট করতে থাকে। গান্ধী হত্যায় দোষী সাব্যস্ত হওয়া দুই চরিত্র ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে অস্থায়ী ক্যাডার হিসেবে সামরিক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ছিল - গোপাল গডসে এবং নারায়ণ আপ্তে। ইউরোপ থেকে ফিরে এসে মুঞ্জে, পুনেতে "ভোসলে মিলিটারি স্কুল" খোলেন। সেই স্কুল আজও আছে। এখন সাধারণ সিবিএসই পাঠ্যক্রম শেখানো হয়। কারণ নব্য-নাৎসিদের এসএস-এ রূপান্তর করার কাজটি এখন ভারতীয় সেনাকে আউটসোর্স করা হচ্ছে। ভারতীয় সেনাবাহিনী আমাদের চোখের সামনে বিশাল শাখায় রূপান্তরিত হতে চলেছে। দেশের যুবসম্প্রদায়কে এই ষড়যন্ত্রের অগ্নিপথে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে

0 Comments

Post Comment