পড়শি যদি আমায় ছুঁতো যম যাতনা সকল যেত দূরে: লালন সাঁই

পড়শি যদি আমায় ছুঁতো যম যাতনা সকল যেত দূরে: লালন সাঁই

hhhhhhhhhhhhhh

আমার অভিজ্ঞতা- ভারত জোড়ো যাত্রা

  • 01 November, 2022
  • 0 Comment(s)
  • 680 view(s)
  • লিখেছেন : নওশীন বাবা খান
আমি, শান্তনু দা এবং ইমতিয়াজ একমাত্র কলকাতা থেকে এসেছি এবং যাকেই আমরা বোঝানোর চেষ্টা করেছি যে আমরা বিশেষভাবে এতদূর এসেছি এই যাত্রায় অংশগ্রহণ করতে, বিস্ময়ে তাদের চোখ প্রশস্ত হয়ে গেছে। কর্ণাটকের কিছু সহযাত্রী যাদের সাথে আমি স্লোগান দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলাম তারা আমাকে ‘ম্যাডাম বাঙালি’ বলে সম্বোধন করছিলেন। মৌখিকভাবে আমরা একে অপরকে বুঝতে পারিনি ভাষাগত কারণে এবং বেশিরভাগ সময় সাংকেতিক ভাষায় যোগাযোগ করতাম কিন্তু যখন শ্লোগানের কথা আসে তখন আমরা সবাই জানতাম কেন আমরা এখানে ছিলাম। ‘জোড়ো জোড়ো’ ‘ভারত জোড়ো’ বা ‘জোডিসি জোডিসি’ ‘ভারত জোডিসি’ ই আমাদের যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে উঠেছে যখনই আমরা দৌড়ের সময় যাদের কাছেই এসেছি তার সাথে ।

আমি কখনই ভাবিনি যে ‘ভারত জোড়ো’ যাত্রায় আমার অংশগ্রহণ এতটা তাৎপর্যপূর্ণ হবে যে আমাকে আমার অভিজ্ঞতা সংবাদ মাধ্যমের একটি ফিচার আর্টিকেল হিসেবে বর্ণনা করতে বলা হবে। আমার এতোদিনের গবেষণা আমাকে ভাবাচ্ছিল কেন এই বর্ণনাটি গুরুত্বপূর্ণ।  হয়তো কলকাতার আইকনিক পার্ক সার্কাস ময়দানে সিএএ-বিরোধী অবস্থান বিক্ষোভে আমার মূল অংশগ্রহণের কারণে নয়তো ২০২০ সালের ফার্ম বিল সম্পর্কে সচেতনতা তৈরির অনন্য ধারণার কারণে, বিশেষত প্রয়োজনীয় পণ্য আইনের বিরুদ্ধে মহানগরের রাস্তায় লড়াই (যা সব পরিবারকেই প্রভাবিত করত),  এই ভাবনার কারণ। গবেষণামূলক লেখা, সামাজিক সংহতি এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের একাডেমিক কার্যক্রমের মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও শান্তি পুনরুদ্ধারের জন্য আমার প্রচেষ্টা কখনও কখনও বৃথা যাচ্ছে বলে মনে হয়। চারপাশে চরম ঘৃণা, এত নেতিবাচকতা, এবং একটি ভীতিকর পরিবেশ আমার মানসিক সুস্থতাকে কিছুটা হলেও প্রভাবিত করেছিল এবং সর্বোপরি, বৈজ্ঞানিক সমস্যাগুলি মোকাবেলা করার অযৌক্তিক উপায়গুলি একজন রাষ্ট্রবিজ্ঞানে শিক্ষানবিশের জন্য খুব বেশি হয়ে উঠছিল। তবে যাত্রায় অংশগ্রহণের প্রত্যয় কোনো একক সূত্র থেকে উদ্ভূত হয়নি। যে আখ্যানটি (‘ভারত জোড়ো’) একতার উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত, একটি দৌড়/হাঁটা যা সংযোগ করে, এবং এমন একটি মাত্রায় অন্তর্ভুক্ত যে আপনি কো কোনো একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায় বা সমাজের একটি অংশ থেকে হলেও এখানে আপনি নিজেকে অপাঙতেয় বলে মনে করেন না। 

 

আমি এমন দুটি সাক্ষাৎকারের কথা উল্লেখ করতে চাই যেগুলি আমার জন্য ভারত জোড়েোর যাত্রায় সামিল হওয়াকে আরও প্রয়োজনীয় করে তুলেছে। প্রথমত, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা জয়রাম রমেশ কর্ণাটকের বাল্লারি জেলায় বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেছিলেন "ইয়ে চুনাভ জিতো ইয়া নাহি জিতো হ্যায়, ইয়ে ভারত জুড়নে কা যাত্রা হ্যায়।" অর্থাৎ নির্বাচনে জেতা হারা বড় বিষয় নয়, বরঞ্চ এটা আরো বেঁধে বেঁধে থাকার জন্য একটি পদযাত্রা।  দ্বিতীয়ত, স্বরাজ ভারতের প্রধান যোগেন্দ্র যাদবের  মূলধারার রাজনীতির উপস্থাপনা। একটি মিটিংয়ে, যার আমি অংশ ছিলাম, তিনি বলেছিলেন "রাজনীতি, নির্বাচনী রাজনীতি এবং পরিচ্ছন্ন রাজনীতির মধ্যে পার্থক্য বুঝতে হবে।" তার দল নির্বাচনে আগ্রহী নয় (এখনই) কারণ তারা দেশের বর্তমান পরিস্থিতির সুরাহার জরুরি প্রয়োজন অনুভব করে এবং এর সত্তা অক্ষুণ্ণ রাখার প্রথম পদক্ষেপ হল ভারতের জনগণকে একত্রিত করা। তাই যখন আমি তাঁকে একই ব্যাখ্যা করতে শুনলাম তখনই আমি অনুভব করলাম, 'হ্যাঁ! হ্যাঁ! আমি এটাই তো করে আসছি এবং এটাই আমি চালিয়ে যেতে চাই'। বস্তুত উত্থাপিত বিষয়গুলি ব্যাপক অর্থে  সাধারণ মানুষ দীর্ঘকাল ধরে যা লড়ে আসছে সেইগুলিই এই যাত্রার মূলমন্ত্র হলেও এই যাত্রা বেকারত্ব, মুদ্রাস্ফীতি এবং দুর্নীতির মতো বিষয়গুলিকে প্রধান রাজনৈতিক আলোচনায় স্থান দিতে সক্ষম এবং এই শ্লোগানই একরকম আমাকে নিশ্চিতভাবে সন্তুষ্ট করেছে এই যাত্রাই অংশীদার হতে।

https://fb.watch/gj745eySyi/

এই যাত্রায় কমলেন্দ্র প্রতাপ সিং, যিনি পেশায় একজন বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী  এবং যিনি ২০০৬ সাল থেকে নাগরিক ও পরিবেশগত সক্রিয়তায় নিযুক্ত ছিলেন এবং স্বরাজ অভিযানের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, আমাকে সাহায্য করেছেন। আমাকে মূল শহর থেকে ৩০০ কিলোমিটারেরও বেশি দূরে অবস্থিত বাল্লারি জেলার যাত্রায় পৌঁছতে হয়েছিল। বল্লারিতে যাত্রা শুরু হয়েছিল  আরও কিছু সহযাত্রীদের সাথে। এদের মধ্যে ছিলেন ৭১ বছর বয়সী রাজনৈতিক আলোচনায় সক্রিয়ভাবে নিযুক্ত প্রাক্তন ব্যাঙ্কার এবং ইংরেজি শিক্ষক শান্তনু সিনহা চৌধুরী এবং বেঙ্গালুরুর একজন স্বাধীন সাংবাদিক, লেকচারার এবং পরিবেশ কর্মী সাবিতা হিরেমাঠে । জীবন নামে সিভিল সোসাইটির প্রতিনিধিত্বকারী আরেক সদস্য ছিলেন যিনি একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানে জলবায়ু পরিবর্তন সহযোগী হিসেবে কাজ করেন। ক্যাম্পে পৌঁছানোর পর আমি কেরালা, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ ইত্যাদির নাগরিক সমাজের অন্যান্য সদস্যদের সাথে দেখা করলাম। আমি, শান্তনু দা এবং ইমতিয়াজ একমাত্র কলকাতা থেকে এসেছি এবং যাকেই আমরা বোঝানোর চেষ্টা করেছি যে আমরা বিশেষভাবে এতদূর এসেছি এই যাত্রায় অংশগ্রহণ করতে, বিস্ময়ে তাদের চোখ প্রশস্ত হয়ে গেছে। কর্ণাটকের কিছু সহযাত্রী যাদের সাথে আমি স্লোগান দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলাম তারা আমাকে ‘ম্যাডাম বাঙালি’ বলে সম্বোধন করছিলেন। মৌখিকভাবে আমরা একে অপরকে বুঝতে পারিনি ভাষাগত কারণে এবং বেশিরভাগ সময় সাংকেতিক ভাষায় যোগাযোগ করতাম কিন্তু যখন শ্লোগানের কথা আসে তখন আমরা সবাই জানতাম কেন আমরা এখানে ছিলাম। ‘জোড়ো জোড়ো’ ‘ভারত জোড়ো’ বা ‘জোডিসি জোডিসি’ ‘ভারত জোডিসি’ ই আমাদের যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে উঠেছে যখনই আমরা দৌড়ের সময় যাদের কাছেই এসেছি তার সাথে ।

 

একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক যা দেখে আমি স্বস্তি পেয়েছি তা হল ক্যাম্পে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। দিনের বিরতির জন্য ক্যাম্পে প্রবেশের জন্য একটি ডে পাসের প্রয়োজন হয় যা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্বারা জারি করা হয় এবং একবার ক্যাম্প থেকে বের হয়ে গেলে পুনরায় প্রবেশ করা যায় না। নাইট ক্যাম্প এই বিষয়ে একটু নমনীয় ছিল কিন্তু নিবন্ধন আবশ্যক. আমি অতিথি যাত্রীর ক্যাটাগরিতে ছিলাম এবং ক্যাম্পে ৩ রাত কাটিয়েছি তাই প্রতি রাতে আমাকে পরবর্তী যাত্রায় অংশ নিতে আমার নাম নিবন্ধন করতে হয়েছিল। যাত্রীদের অন্যান্য শ্রেণীও আছে যেমন কংগ্রেস দ্বারা মনোনীত ভারত যাত্রী, প্রদেশ কংগ্রেস দ্বারা সমন্বিত রাজ্য যাত্রী, এবং জাতীয় যাত্রী যারা কন্যাকুমারী থেকে যাত্রা শুরু করেছিলেন কিন্তু হয় নাগরিক সমাজ বা অন্য পটভূমি থেকে। মূলত পুরুষদের দ্বারা গঠিত ভিড়ের মধ্যে  একবারের জন্যও  আমার অনিরাপদ বা অস্বস্তিকর বোধ  হয়নি এবং একই অভিজ্ঞতা ছিল অন্যান্য মহিলা অংশগ্রহণকারীদের যেমন  মধ্যপ্রদেশের ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রী রেণু কিংবা বিশালাক্ষী পদ্মনাভন, একজন প্রাক্তন চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট যিনি জৈব চাষ করেছিলেন কর্ণাটকের কৃষিক্ষেত্রে দুর্দশা মেরামত করতে। সবিতার কথায়, তালিকার শীর্ষে থাকবে ভিড়ের ভাল আচরণ । এক পর্যায়ে, আমরা শত শত পুরুষ দ্বারা ঘেরা ঠিক কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে ছিলাম। তাদের মধ্যে কেউ খারাপ ব্যবহার করেনি, হাতছানি দেয়নি বা এমন কিছু বলেনি/ফিসফিস করেনি যা আচরণের নেতিবাচক কোডকে প্রতিফলিত করে।

 

এখন যাত্রার কথায় আসা যাক। সকালের ১০ থেকে ১৫ কিমি হাঁটা শুরু হয় সকাল ৬ টা  থেকে ৬.১৫ র মধ্যে এবং সন্ধ্যায় ৭ থেকে ১২ কিমি পর্যন্ত হাঁটা হয়। তাই তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠে  যাত্রায় প্রবেশাধিকার আছে এমন যানবাহনে সময়মতো ঘটনাস্থলে পৌঁছানো যায় এবং আপনার দলের সাথে বিচ্ছিন্ন না হওয়ার পূর্ব-নির্ধারিত উদ্দেশ্য নিয়ে ভিড়ের সাথে হাঁটা খুবই চ্যালেঞ্জিং। আমি এটি বলছি কারণ এটি এমন একটি যাত্রা যার জন্য কেবল একটি ফিট শরীরই নয়, নিরাশ হতে নারাজ এবং কাজটি অসম্পূর্ণ না রাখার জন্য একটি পরিষ্কার মনও প্রয়োজন। ধারাবাহিকতা হল যাত্রার আরেকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক যার জন্য অপরিমেয় পরিকল্পনা এবং তার দক্ষ বাস্তবায়ন প্রয়োজন।

আমি  নিম্নলিখিত বুলেট পয়েন্টগুলিতে যাত্রা সম্পর্কে আমার রাজনৈতিক বোঝার সংক্ষিপ্তসার করে লিখতে চাই

 

  • আমি ভারতীয় ইতিহাসে নিবন্ধিত অন্য যে কোনও যাত্রার চেয়ে ‘ভারত জোডো’ ব্যাপারটিকে একটি প্রতিবাদ মিছিল বা প্রতিরোধ বা জনগণের আন্দোলন হিসাবে বেশি বিবেচনা করি। কারণ হল ১২টি রাজ্যের সাথে এর সংযোগ এবং দক্ষিণ থেকে এর উদ্বোধন এবং কেন্দ্রীয়ভাবে অবস্থিত কোনও অঞ্চল থেকে নয়, এমনকি যে অঞ্চলগুলিতে আগামী মাসে তাদের নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে সেখান থেকেও না।
  •  এক ধরনের রাজনৈতিক নেতৃত্ব যার অপেক্ষায় সুশীল সমাজ। আমি এটা বলছি কারণ  গণতন্ত্রে চরম আদর্শবাদী ভিত্তি সহ  একজন জনদরদী নেতা সামগ্রিকভাবে জনগণের অগ্রগতির জন্য প্রয়োজনী। নাহলে সামাজিক যোগসূত্র গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে। বহুভাষিক, বহু-জাতিগত, এবং বৈচিত্র্যময় ইস্যু সহ ভারতের মতো একটি বৈচিত্র্যময় দেশকে গণতান্ত্রিক আলোচনার জোরদার করার জন্য একটি প্রগতিশীল বক্তৃতা প্রয়োজন যা কেবল একজন রাষ্ট্রনায়কই আনতে পারেন। রাহুল গান্ধী একজন সত্যিকারের রাষ্ট্রনায়ক কি না তা সময়ই বলে দেবে, কিন্তু তার কাছে নিশ্চয়ই এমন কিছু আছে, তা দিয়ে তিনি ক্রমশ মানুষকে আকর্ষণ করছেন। তিনি ভালভাবে অবগত কেন এই ভারত জোড়ো যাত্রা করা হচ্ছে এবং শুধুমাত্র মিডিয়ার  জন্যই নয় বরং বিজ্ঞান ও যুক্তির উপর ভিত্তি করে তাদের প্রশ্নের যুক্তিযুক্ত উত্তর রয়েছে, কেন মানুষের এই যাত্রায় সামিল হওয়া জরুরী।
  • উপরে উল্লিখিত সুশীল সমাজের সদস্যদের একটি সর্বসম্মত আশার আলো এই যাত্রা। তাই এখন সুশীল সমাজের অনেকেই মনে করছেন এই পদ্ধতির মাধ্যমে পরিস্থিতি একটু হলেও ভাল হতে পারে.

 

 

0 Comments

Post Comment